চুল পড়া বন্ধ করার উপায় । জেনে নিন - chul pora bondo korar upay

 


আজ আমরা আলোচনা করবো চুল পড়া বন্ধ করার উপায় সম্পর্কে । আমরা চুল পড়া বন্ধ করার উপায় হিসেবে অনেক পথ অবলম্বন করে থাকি , আজ আমরা আলোচনা করবো ঘরে বসেই চুল পড়া বন্ধ করার উপায় সম্পর্কে ।

দূষিত পরিবেশ, বয়স, মানসিক চাপ, নেশা,ঘুম না হওয়া, সুষম খাবারের অভাব, হরমোনাল ইমব্যালেন্স, স্ক্যাল্পে ইনফেকশন, বিভিন্ন হেয়ার প্রডাক্টের মাত্রাতিরিক্ত ব্যবহার, দীর্ঘদিন ধরে সেবনকৃত ঔষধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া , থাইরয়েড সমস্যা , অটোইমিউন ডিজজ, PCOS, অ্যানিমিয়া, কিংবা জেনেটিক কারণ, এরকম নানা কারণেই চুল পড়া যেন আমাদের নিত্যদিনের ভোগান্তি। আমাদের মাথা থেকে প্রতিদিন সর্বোচ্চ ১০০টি চুল পড়ে যাওয়া স্বাভাবিক ঘটনার মধ্যেই পরে। চুল পরে গিয়ে আবারো নতুন চুল গজায়।  কিন্তু যখন ই এর বেশি মাত্রায় চুল পরা শুরু হয় সাথে নতুন চুল ও না গজায়। তখনি তা হয়ে দাঁড়ায় আমাদের চিন্তার বিষয়। তখনি যত তাড়াতাড়ি সম্ভব প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিন , না হলে কিন্তু মাথায় টাক পরে যেতে হয়ে যেতে খুব বেশি দিন সময় লাগবে না। 

আসুন জেনে নেয়া যাক কীভাবে প্রাকৃতিক ভাবে চুল পড়া বন্ধ করার উপায় -

১. নারকেল তেলের ব্যবহার (chul pora bondo korar upay) -

চুল পড়া বন্ধ করার উপায় হিসেবে এক কাপ খাটি নারকেল তেল অথবা নারকেলের দুধ সংগ্রহ করে ধীরে ধীরে স্কাল্পে ম্যাসাজ করুন। তারপর নরম কোন সুতি টাওয়াল দিয়ে মাথা ঢেকে রাখুন। তারপর ২০ মিনিট অপেক্ষা করুন। ২০ মিনিট পর চুল পরিষ্কার পানি দিয়ে ভাল করে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে দু থেকে তিনবার এই পদ্ধতিটি ফলো করে দেখবেন চুল পড়া কমতে অনেক সাহায্য করবে। কারণ নারকেলর দুধে র‍য়েছে ভিটামিন ই যা চুলেএ জন্য সবচেয়ে উত্তম ময়েসশ্চারাইজার হিসেবে কাজ করে এবং চুলে পুষ্টির ঘাটতি পূরণ করে।

২. টক দইয়ের প্যাক (chul pora bondo korar upay) -

চুল পড়া বন্ধ করার উপায় হিসেবে ২-৩টেবিল চামচ টক দইয়ের সাথে ১ টেবিল চামচ মধু দিয়ে তাতে সামান্য লেবুর রস মিশিয়ে নিন। প্রতিটি উপাদান ভালোমতো মিক্স হয়ে গেলে, মিশ্রনটি ভাল করে সসম্পূর্ণ চুলে ভালোময় লাগিয়ে নিন। তারপর ২০-৩০ মিনিট অপেক্ষা করুন। সময় হলে আপনার চুল ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ভালো মত ধুয়ে ফেলুন।এই পদ্ধতিটি সপ্তাহে দু থেকে একবার করলেই দেখবেন চুল পড়ার হার কমে আসবে।

৩. চুলে বিটরুট এর ব্যবহার (chul pora bondo korar upay) -

চুল পড়া বন্ধ করার উপায় হিসেবে বিটরুটে রয়েছে পটাশিয়াম, প্রোটিন, ভিটামিন বি এবং সি যা নানাভাবে চুল পড়া কমাতে সহায়ক। বিটরুটের প্যাক তৈরি করতে পরিমাণ মতো বিটরুট পাতা নিয়ে পানিতে দিয়ে সামান্য সেদ্ধ করে নিন।  তারপর পানি ছেকে নিয়ে পানিতে মেথি গুড়ো মিশিয়ে নিন। এই মিশ্রনটি মাথায় ২০-৩০ মিনিট লাগিয়ে রাখুন। এটি চুল পড়ার হার একেবারে কমিয়ে আনবে। ভালো ফলাফল এর জন্য অবশ্যই সপ্তাহে তিনবার এভাবেই চুলের পরিচর্যা করতে হবে।

৪. মেথির ব্যবহার (chul pora bondo korar upay)  -

চুল পড়া বন্ধ করার উপায় হিসেবে  মেথি/মেথি গুড়ো দারুন কাজে দেয়৷ মেথিতে উপস্থিত বেশ কিছু পুষ্টি উপাদান চুলের বৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। যখনই দেখবেন আপনার চুল পড়ার পরিমান খুব বেড়ে যাচ্ছে তখনি এই কাজটি করু - অল্প কিছু মেথি বীজ নিয়ে এক গ্লাস পানিতে সারা রাত ভিজিয়ে রাখবেন। পরদিন বীজগুলি বেটে নিয়ে একটা পেস্ট বানান। সেই পেস্টটাই ভাল করে মাথার স্ক্যাল্পে লাগিয়ে ৩০-৪০ মিনিট রেখে দিন। তারপর পরিষ্কার পানি দয়ে ধুয়ে নেবেন। আপনাকে টানা একমাস, প্রতিদিন এই মিশ্রনটি মাথায় লাগাতে হবে এতে আপনার চুল পড়া কমতে বাধ্য। সেই সঙ্গে  নতুন চুল গজানো শুরু হবে।

৫. পেঁয়াজের রস (chul pora bondo korar upay)  -

চুল পড়া বন্ধ করার উপায় হিসেবে  পেয়াজে রয়েছে প্রচুর সালফার। সালফার স্ক্যাল্পের হেয়ার ফলিকেলসে রক্ত চলাচল বাড়িয়ে দিতে সক্ষম। যা নিমেষেই আমাদের চুল পড়া কমিয়ে দেয়। শুধু তাই নয় পেঁয়াজের রসে রয়েছে বিপুল পরিমাণে অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল গুনাগুন। যদি স্কাল্পে কোন  জীবাণুদে বাসা বেঁধে থাকে পেয়াজের রস তা মেরে ফেলতে সক্ষম।এভাবে স্ক্যাল্পের ইনফেকশন দূর করার সঙ্গে সঙ্গে চুল পড়ার প্রবনতাও হ্রাস করে পেয়াজের রস।

জেনে নেই যেভাবে চুলে লাগাবেন পেঁয়াজের রস- গোটা ১ টি পেয়াজ নিয়ে তা থেকে রস সংগ্রহ করুন । তারপর সেই রস সরাসরি মাথায় লাগিয়ে মাসাজ করতে থাকুন এবং ২০ মিনিট পরে শ্যাম্পু করে নিন। সপ্তাহে ২-৩ বার যদি এই পদ্ধতিতে চুলের পরিচর্যা করেন তবে অবশ্যই উপকার পাবেন।

৬.তেল ম্যাসাজ করুন (chul pora bondo korar upay) -

চুল পড়া বন্ধ করার উপায় হিসেবে প্রতিদিন তেল ম্যাসাজ করাটাও খুব জরুরি। এতে মাথার রক্ত সঞ্চালন প্রবাহ বেড়ে যায়। ফলে চুলের গোড়া হয় আরো মজবুত । চুলের গোড়া মজবুত হলে স্বাভাবিক ভাবে  চুল পরাও হ্রাস পাবে । এক্ষেত্রে নারকেল তেল, আমন্ড ওয়েল, অলিভ অয়েল অথবা আমলকির তেল ব্যবহার করা যেতে পারে।

চুলের যত্ন কিভাবে নিতে হয় - জেনে নিন ঘরোয়াভাবে চুলের যত্ন কিভাবে নিতে হয়

৭.নিম পাতার ব্যবহার (chul pora bondo korar upay) -

চুল পড়া বন্ধ করার উপায় হিসেবে নিম পাতা একটি উত্তম অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল হিসেবে কাজ করে।এতে থাকা প্রপার্টিজ চুলের গোড়ায় যে কোন ধরনের সংক্রমণ যেমন কমায়  তেমনি কমিয়ে দেয় খুশকির প্রকোপ। তখন এমনি চুল পরার পরিমাণ কমে যায়।

হেয়ার ফল বেশি হলেই ১০ টার মত নিম পাতা নিয়ে জলে কিছুক্ষন ফুটিয়ে নেবেন। তারপর সেই জল দিয়েই ভাল ভাবে চুলটা ধুয়ে নিন। সপ্তাহে ৩-৪ দিন এই পদ্ধতি অবলম্বন করকে উপকার পাবেন। 

৮. অ্যালোভেরার ব্যবহার (chul pora bondo korar upay)  -

চুল পড়া বন্ধ করার উপায় হিসেবে  এলোভেরাতে এমন কিছু  এনজাইম রয়েছে, যা চুলের বৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। ফলে চুল পরে গেলেও নতুন চুল গজায়।এছাড়াও এতে উপস্থিত অ্যালকেলাইন প্রপার্টিজ স্ক্যাল্পের পি এইচ লেভেল ঠিক রাখে । যাতে চুল পরার হার কমে।

যেভাবে ব্যবহার করবেন এই প্রাকৃতিক উপাদানটি- পরিমাণ মতো এলোভেরা জেল নিয়ে স্ক্যাল্পে লাগিয়ে ফেলুন। এক ঘন্টা অপেক্ষা করুন তারপর নরমাল পানি দিয়ে ভাল করে মাথাটা ধুয়ে নিন। সপ্তাহে ৩-৪ বার এই ভাবে এলোভেরা জেল মাথায় লাগলে চুল পড়া কমাতে সহায়তা করবে।

৯. আমলকি (chul pora bondo korar upay) -

চুল পড়া বন্ধ করার উপায় হিসেবে  এবং চুলের বৃদ্ধিতে আমলকির কোনো বিকল্প নেই। এতে রয়েছে প্রচুর ভিটামিন সি, যা চুলের পুষ্টি বৃদ্ধি করে, সেই সাথে চুল পড়া কমায়। দেহে ভিটামিন-সি-এর ঘাটতি দেখা দিলেও চুল পরা শুরু হয়। এই ভিটামনের ঘাটতি যেন না হয়, সেদিকেও খেয়াল রাখাটাও একান্ত প্রয়োজন। আমলকির প্যাক তৈরিতে ১ চামচ আমলার রসে  ১ চামচ লেবুর রস মিশিয়ে নিবেন। তারপর সেই মিশ্রনটি ভাল করে চুলে লাগিয়ে সারা রাত রেখে দিতে পারেন।সকালে উঠে ধুয়ে ফেলুন।

এভাবে নিয়মিত পরিচর্যা করলে আপনি প্রাকৃতিক উপায়েই চুল পড়া কমিয়ে আনতে পারবেন। 

Post a Comment

Previous Post Next Post